Home / রহস্য / ফেঁসে যেতে পারেন নায়িকা সিমলা!

ফেঁসে যেতে পারেন নায়িকা সিমলা!

বিমান ছিনতাইয়ের ঘটনায় ফেঁসে যেতে পারেন জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত নায়িকা সিমলা! ঢাকা থেকে দুবাইগামী বাংলাদেশ বিমানের বোরিং-৭৩৭ মডেলের উড়োজাহাজ ছিনতাইকারী কথিত মাহাদীর পরিচয় মিলেছে। তার নাম মাহমুদ পলাশ (২৪)। বাংলাদেশ চলচ্চিত্রে জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত নায়িকা সিমলা তার দ্বিতীয় স্ত্রী বলে দাবি করেছে পলাশের পরিবার। বেগে পাওয়া পাওয়া সিমলার সঙ্গে ছবি ও কাবিন নামা। আর যে কারণেই ফেঁসে যেতে পারেন সিমলা! এবিষয়ে জানতে সোমবার দুপুর ১২টার দিকে সিমলার ব্যক্তিগত মোবাইল নম্বরে কল দেওয়া হলেও তিনি রিসিভ করেননি।

র‌্যাবের ক্রিমিনাল ডাটাবেইজ অনুযায়ী, নিহত বিমান ছিনতাইয়ের চেষ্টাকারীর পরিচয় পাওয়া গেছে। রবিবার(২৪ ফেব্রুয়ারি) কমান্ডো অভিযানে নিহত বাংলাদেশ বিমানের উড়োজাহাজ ছিনতাইয়ের চেষ্টাকারীর কথিত মাহদীর ফিংগার প্রিন্ট অনুসন্ধানে র‌্যাব ক্রিমিনাল ডাটাবেইজের একজন অপরাধীর তথ্যাদির সঙ্গে মিল পাওয়া যায়।

ডাটাবেইজে রক্ষিত তথ্য অনুযায়ী তার পরিচয়, নাম : মো. পলাশ আহমেদ, পিতা : পিয়ার জাহান সরদার, ঠিকানা : দুধঘাটা, পিরিজপুর, সোনারগাঁও, নারায়নগঞ্জ। ওই বিমানের পেসেঞ্জার লিস্ট অনুযায়ী, তিনি অভ্যন্তরীন রুটের (ঢাকা-চট্টগ্রাম) যাত্রী ছিলেন। তার নাম উল্লেখ ছিল AHMED/MD POLASH. সিট নং ছিল-17A. মোবাইল নাম্বার হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে (০১৭৭৭৭২৯১৪০)।

চট্টগ্রামে বিমান ছিনতাই চেষ্টাকারী চিত্রনায়িকা শিমলার ব্যর্থ প্রেমিক বলে জানা গেছে। শিমলার প্রেমে ব্যর্থ হয়ে সাগর নামে ওই যুবক এ বিমান ছিনতাইয়ের চেষ্টা করেছিলেন।

রোববার (২৪ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় বাংলাদেশ বিমানের বিজি-১৪৭ নং ফ্লাইটটি দুবাইয়ের উদ্দেশে ঢাকা ছেড়ে চট্টগ্রামের শাহ আমানত বিমানবন্দরে জরুরি অবতরণ করে।

এদিকে চিত্রনায়িকা শিমলার ও বিমান ছিনতাইকারীর অন্তরঙ্গ কিছু ছবি এবং ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। এ বিষয়ে চিত্রনায়িকা শিমলার সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তার মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

সিভিল এভিয়েশন সচিব মহিবুল হক গণমাধ্যমকে বলেছেন, নায়িকা শিমলার প্রেমে ব্যর্থ হয়ে সাগর নামে ওই যুবক এ বিমান ছিনতাইয়ের চেষ্টা করেছিলেন।

উল্লেখ্য, রোববার (২৪ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় বাংলাদেশ বিমানের বিজি-১৪৭ নং ফ্লাইটটি দুবাইয়ের উদ্দেশে ঢাকা ছেড়ে রওনা করে। পরে চট্টগ্রামের শাহ আমানত বিমানবন্দরে জরুরি অবতরণ করে। বিমানটি ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম হয়ে দুবাই যাচ্ছিল। ঢাকা-চট্টগ্রামের মাঝামাঝি অবস্থায় থাকার সময় সেই যুবক অস্ত্র দেখিয়ে বিমানের পাইলটদের জিম্মি করার চেষ্টা করে। এসময় পাইলটদের বুদ্ধিমত্তায় পরিস্থিতি বদলায় এবং জরুরি অবতরণের পর বিমান যাত্রীরা অক্ষত অবস্থায় বের হয়ে আসে।